"করব মোরা মাছ চাষ থাকব সুখে বার মাস"

মাছ চাষে জৈব নিরাপত্তা ও রোগ প্রতিরোধ কৌশল

মাছ চাষে জৈব নিরাপত্তা ও রোগ প্রতিরোধ কৌশল

ভূমিকা: মাছের সাস্থ্য ব্যবস্থাপনার প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। পরিকল্পিত খামার ব্যবস্থাপনা ও পরিবেশগত কারনে মাছের পুকুরে বা খামারে সংক্রামক রোগ –বালাইয়ের প্রাদুর্ভাব হয়। অধিক উৎপাদনের আশায় অনেক মৎস্য চাষী বেশী ঘনত্বে মাছ চাষ করে এবং প্রয়োজনের অধিক খাদ্য, সার বা রাসায়নিক প্রয়োগ করে । ফলে জলজ পরিবেশ দূষিত হয়। এবং মাছ বিভিন্ন ধরনের সংক্রামন রোগে আক্রান্ত হয়। রোগের ফলে মাছের ব্যাপক মৃত্য হয়। এবং প্রত্যাশিত উৎপাদন পাওয়া যায় না । সঠিক সময়ে রোগ নির্ণয় , সতর্কতা বা প্রতিরোধমূলক কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহন করে মাছকে রোগমুক্ত করা সম্ভব।

পুকুর

 

১ . পুকুরের অআভ্যন্তরীণ জীবাণু ধ্বংস করা । যেমন : পুকুরের চুন প্রয়োগ এবং পরিবেশ বান্ধব জীবাণুনাশক ব্যবহার করা ইত্যিাদি ।

২. পুকুরে বহিরাগত জিবাণু প্রবেশ রোধ যেমন : পুকুরের পাড় বাধা, পুকুরের চারপাশে বেড়া দেওয়া , বহিরাগত প্রাণী প্রবেশ রোধ, জালসহ বিভিন্ন সামগ্রী ব্যবহাররের পূর্বে শুকানো এবং জীবানু মুক্ত করা।

৩.খামারের উন্নত ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে মাছের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করা । যেমন : পুকুর প্রস্ততি থেকে মাছ ধরা পর্যন্ত প্রতিটি ধাপে উন্নত ব্যবস্থাপন,সুস্থ ও সবল পোনা নির্বাচন, সঠিক ঘনত্ব পোনা মজুদ এবং সঠিক উপায়ে পরিমিতি সুসম খাবার প্রয়োগ করা ইত্যাদি।

৪. খামারে নিয়মিত পরিচর্যা ও পযবেক্ষেণ করা যেমন : নিয়মিত সাস্থ্য পরীক্ষা করা । চাষযোগ্য মাছ যেমন : রুই, কাতল, পাঙ্গাস, কৈ, শিং, ও তেরাপিয়া মাচের সচরাচর যে সকল রোগ ও নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা করা

 

Share This:

1 Comment
  1. fisheris

Leave a Reply