"করব মোরা মাছ চাষ থাকব সুখে বার মাস"

মাছের খাদ্যর পুষ্টি উপাদানসমূহ

মাছের খাদ্যর পুষ্টি উপাদান  আমিষ শর্করা স্নেহ এবং ক্যালরী এর উৎসসমূহ:

মাছের খাদ্য তৈরীতে ব্যবহার করা যায় এমন অনেক সম্ভাবনাময় খাদ্য উপাদান আমাদের দেশেই পাওয়া যায়। মাছের খাদ্য হিসাবে চালের কুঁড়া,গমের ভূষি, ভূট্টা, সরিষার খৈল, তিলের খৈল, সয়াবিন খৈল, সচরাচর পাওয়া যায়। বর্তমানে দেশে ভাল মানের ফিস মিল পাওয়া যায় না। বাজারে স্থানীয়ভাবে প্রাপ্ত ফিস মিল চেওয়া মাছের শুঁটকীর গুঁড়া এবং অনেক ক্ষেত্রে পাঁচমিশালী শুটকির গুড়া তেমন ভাল নয়। বর্তমানে অনেকেই আমদানিকৃত  প্রোটিন কনসেনট্রেট ,মিট ও বোন মিল মাছের খাদ্য প্রাণীজ আমিষ হিসাবে ব্যবহার হয়ে থাকে । কিন্তু বিভিন্ন দেশ থেকে হতে আমদানিকৃত মিট ও বিন মিলে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস ও ফাইফার বা আঁশের পরিমাণ অধিক থাকায়  মৎস্য ও চিংড়ি খাদ্য এদের ব্যবহার শতকরা ২৫ ভাগের  বেশি না করাই বাঞ্ছনীয়। উল্লেখ্য যে, পুষ্টিমান বজায় থাকার স্বার্থে মৎস্য খাদ্যে স্বল্প পরিমাণ হলেও এক বা একদিক প্রাণীজ খাদ্যে উপাদান ব্যবহার করা প্রয়োজন । উদ্ভিজ আমিষের উৎসসমূহে পুষ্টিমান কম থাকায় এবং উচ্চ আঁশযুক্ত হওয়া এবং খাদ্যোপাদানে পুষ্টি-বিরোধী উপাদান ও বিষাক্ত দ্রব্য থাকে যেগুলো গুনগত-মান হ্রাসে বিশেষ ভূমিকা রাখে । মাছের খাদ্য তৈরীতে প্রয়োজনীয় সকল উপাদান সঠিক পরিমাণে ব্যবহার করতে হবে যাতে প্রস্তুতকৃত মাছের খাদ্যে পূন বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টি তথা – আমিষ, র্শকরা, স্নেহ, ক্যালরী ,ভিটামিন ও খনিজ লবণ বিদ্যমান থাকে । খাদ্যে কোন বিশেষ উপাদান ঘাটতি থাকলে মাছের উৎপাদন ব্যাহত হবে ।  বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা  ইনস্টিটিউড পরিচালিত এক জরিপে গবেষণায় দেখা যায় যে, দেশে ৩৫টিরও বেশি সহজলভ্য অপেক্ষাকৃত স্বল্পমূল্যের পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে যা তেলাপিয়া , পাঙ্গাস, ও কৈ মাছের খাদ্য হিসাবে ব্যবহার করা যায়।

  • আমিষ জাতীয় খাদ্য উপাদান : ফিস মিল, মিট ও বোন , পাঁচ মিশালী শুঁটকী গুড়া , চিংড়ির গুড়া, কাঁকড়ার গুড়া, ব্লাড মিল, সরিষার খৈল, সয়াবিন খৈল, নারিকেলের খৈল, বাদামের খৈল, তিলের খৈল, ক্ষুদি-পানা, হেল্লেঞ্চা, বাঁধাকপি পাতা, ইত্যাদি।
  • তৈল জাতীয় খাদ্য উপাদান: ফিস মিল, মিট ও বোন মিল , রেশমকীট মিল, সয়াবিন খৈল, সরিষার খৈল, তিলের খৈল, ইত্যাদি।
  • শর্করা জাতীয় খাদ্য উপাদান: চালের কুড়া, গমের ভূষি, গমের আটা, ভুট্টার আটা, চিটাগুড়, ইত্যাদি।

মৎস্য খাদ্য হিসাবে ব্যবহার হয়  বিভিন্ন উপাদানের পুষ্টিমান নিম্ন দেওয়া হল।

উপাদানের নামআমিষ %স্নেহ %শর্করা %ক্যালরী কেজি
চিটা গুড়৪-৫-৮০-৮৫৩,৬২৪
ফিস মিল (গ্রেড এ৫৫-৬৫১০-১২১-২৪,৭৫৪
পাঁচ মিশালী শুটকি গুড়া৩০-৪০৫-৮২-৪৩,১৩২
ফিস মিল ( চওয়া শুটকি)৩০-৪০৫-১০২-৫৩,২৪০
মিট এন্ড মিল (ফিড গ্রেড) ৪৫-৫৫১০-১৫১-২৪,১১২
বোন মিল ১০-২০২-৪২০-৩০৩,৫৮৯
চিংড়ি গুড়ি (শ্রিম্প মিল)২০-৩০১-২২-৫৩,৫৭৪
কাঁকড়া গুড়া২০-৩৫৬-৮৫-১০৩,২৭১
রেশমকীট মিল৪৫-৫৫১৫-২৫৩-৮৪,৯৩৯
ব্লাড মিল৭০-৯০০.৫-২.০১-৩৪,৩৯৪
ফিস সাইলেজ৪০-৫৫১৫-২০১০-১২৪,৭৮৪
মিট মিল (ট্যানারী)৬০-৯০১-৩১-২৪,৭৮৫
রাইম পালিশ১০- ১৪১০-১৫৫০-৬০৪,০৬৬
চালের কঁড়া ( সনাতন মিলিং)৭-১০১০-১৫৫০-৫৫৩,৩৮৮
চালের কুঁড়া (অটো)১০- ১৪২০-২৫৪৫-৫০৩,৬৫০
চালের কুঁড়া (তৈল নিষ্কাষিত)১৪-১৮০.৫-১.৫৪৫-৫০৩,৫৬০
গমের ভূষি১২- ১৬৩-৬৭০-৮০৩,৭৯৪
ভূট্টা৮-১০৩-৪৬৫-৭০৩,৮৫৪
গমের আটা১২-১৮২-৩৭৫-৮০৪,৪৮৮
সয়াবিন মিল/কেক৪০-৪৫১০-১৫৩০-৩৫৫,৪৯৯
সয়াবিন মিল (তৈল নিষ্কাষিত )৪৫-৫৫.০৫-১.৫৩০-৪০৪,৯৫০
সরিষার খৈল ২৮-৩৫৮-১৪৩০-৪০৪,১৭৮
রাই সরিষার খৈল৩০-৪০৬-১২৩০-৩৫৩,৮২৮
তিলের খৈল৩০-৩৫১০-১৫৩০-৩৫৪,৭৩৫
নারিকেলের খৈল১৫-২০১০-১২৩০-৩৫৪,৫২৩
ময়দা১৮-২০০.৫-১.০৭০-৭৫৪,৩৬৮

 

Share This:

1 Comment
  1. sir,
    asshlamualaikum,sir ami akjon mahs chase.amar 12 akor jolakar 8 ti pukur ashe.ami apnar kache janta chai
    1.pathari mahs ar akok kono chas poddoti ase ki na janta chay and adaer feed ki apnadaer kashae pabokina ?jodi thake tahola kivaba chas korta hoba ?
    2.chetol mahs ar feed ki akok vavae paoi jai and chas kora jaba ki na ?

Leave a Reply